সম্ভাবনা

বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস ২০১৫

নারী ও শিশু সবার আগে সেবা পাবে


পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী ১৯৫১ সালে এদেশে ২ কোটি ৩ লাখ লোক ছিল। বর্তমানে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ১৬ কোটি ৭০ লাখ। জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৩৪ শতাংশ।


DVM (Doctor of Veterinary Medicine). ১১ জুলাই ২০১৫, ০১:০৯


আজ ১১ জুলাই, বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস। সারাবিশ্বে এই দিনটি একসাথে উদযাপিত হয়। ২৬ বছর আগে ১৯৮৯ সালে ইউনাইটেট ডিভলোপমেন্ট প্রোগ্রাম (ইউএনডিপি) ১১ জুলাই বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালনের সুপারিশ করে। সেই থেকে দিবসটি পালিত হচ্ছে।

এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য হচ্ছে: নারী ও শিশু সবার আগে, বিপদে-দূযোর্গে প্রাধান্য পাবে।

জাতিসংঘ পরিচালিত ইউনাইটেট ন্যাশন্‌স পপুলেশন ফান্ড (ইউএনএফপি) সাধারণত সারাবিশ্বে নারী স্বাস্থ্য ও সেবা বিশেষত প্রজনন ও প্রসূতি সেবার উপর নজর রাখে। তাদের মতে বিশ্বে প্রায় ৬০ মিলিয়নের মত নারী সংকটে আছে। নারী ও অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়েরা স্বাস্থ্য ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাদের তথ্য থেকে আরো জানা যায়,

  • অপরিণত মেয়ে ও নারীরা অসময়ে গর্ভধারণ ও প্রসবকালীন নানা জটিতলতায় মারা যায়।
  • এরা নানাভাবে যৌন হয়রানির শিকার হয়। তাছাড়াও পরিবারের চাপের মুখে অপরিণত বয়সে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে হচ্ছে।
  • এসব মায়েরা বাচ্চা জন্মদান ও পরিচর্যায় আত্মনিয়োগ করায় নিজেদের স্বাস্থ্যের প্রতি নজর রাখতে ব্যর্থ হন। ফলে দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থ্যতা ও দূর্বলতায় ভোগেন।
  • সাধারণত আইন-ব্যবস্থার দূর্বলতার কারনে জরুরী অবস্থা আরো জটিল হয়। পাশাপাশি জলবায়ু, ভূখন্ড, অর্থ ও ক্ষমতা মেয়ে ও নারীদের বেহাল দশা বাড়াতে অধিক ভূমিকা রাখছে।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী ১৯৫১ সালে এদেশে ২ কোটি ৩ লাখ লোক ছিল। বর্তমানে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ১৬ কোটি ৭০ লাখ। জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৩৪ শতাংশ।

বিশাল এই জনসংখ্যার অর্ধেকই প্রায় নারী ও শিশু। আমাদের দেশের এই নারীরাও নানা ধরনের জটিলতায় ভোগেন। তাছাড়া সেবা থেকেও বঞ্চিত হন। জরিপ থেকে জানা যায়,

  • বর্তমানে ১৫% প্রসব বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে হয়। গ্রামের ক্ষেত্রে ৯০ ভাগ প্রসব দাইমা ও আত্মীয়দের দ্বারা হয়।
  • প্রসবকালীন জটিলতায় কিশোরী মায়েরা মারা যান ৬%।
  • অধিকাংশ মায়েরা প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক কথা বলতে লজ্জ্বাবোধ করেন।
  • মাতৃ মৃত্যুহার কমাতে সরকারের উদ্যোগ যথেষ্ট প্রশংসার দাবি রাখে। সরকার দেশের ৫৯ টি জেলা হাসপাতাল ও ১৩২ টি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরী প্রসূতি সেবা নিশ্চত করেছে।
  • ইউএনএফপি’র তথ্যমতে, দেশে বর্তমানে শতকরা ৪২ জন গর্ভবতী মা প্রশিক্ষিত ধাত্রীর সহায়তায় বাচ্চা প্রসব করছে।
বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস ২০১৫ কে সফল করতে এবং গণমানুষকে সচেতন করতে আমাদের দেশের প্রতিটি বিভাগ, জেলা ও উপজেলায় নারী ও শিশুদের সেবা বিষয়ে আলোচনা সভা ও র‌্যালি অনুষ্ঠিত হবে। ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে প্রধান অতিথি হিসেবে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বক্তব্য রাখবেন। দিবসটি পালন উপলক্ষ্যে রেডিও ও টেলিভিশনে বিশেষ বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করবে।

কুসংস্কার, অবহেলা, অসচেতনতা এখনও আমাদের দেশে কম নয়। তাই বিশ্ব জনসংখ্যা দিবসকে সফলকাম করতে সকলের অদম্য প্রচেষ্টা জরুরী। তবে কোন বিষয়ে মানুষকে সচেতন করতে শুধু নির্দিষ্ট দিবসই যথেষ্ট নয়। দিবসের প্রতিপাদ্য ও মূল শিক্ষা সারা বছরব্যাপী সকলের মাঝে ছড়াতে হবে। তবেই দিবস উদযাপন স্বার্থক হবে।
এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

population, day, Women, children, Human, people, Bangladesh, global, Rights


ঢাকার নামকরণের ইতিহাস এবং প্রাসঙ্গিক ঐতিহাসিক ঘটনাবলী

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা মোঘল-পূর্ব যুগে কিছু গুরুত্বধারন করলেও শহরটি ইতিহাসে প্রসিদ্ধি লাভ করে মোঘল যুগে। ঢাকা নামের উৎপত্তি সম্পর্কে স্পষ্ট করে তেমন কিছু জানা যায় না। এ সম্পর্কে প্রচলিত মতগুলোর মধ্যে কয়েকটি নিম্নরূপ: ক) একসময় এ অঞ্চলে প্রচুর ঢাক গাছ (বুটি ফুডোসা) ছিল; খ) রাজধানী উদ্বোধনের দিনে ইসলাম খানের নির্দেশে এখানে ঢাক অর্থাৎ ড্রাম বাজানো হয়েছিল; গ) ‘ঢাকাভাষা’ নামে একটি প্রাকৃত ভাষা এখানে প্রচলিত ছিল; ঘ) রাজতরঙ্গিণী-তে ঢাক্কা শব্দটি ‘পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র’ হিসেবে উল্লেখিত হয়েছে অথবা এলাহাবাদ শিলালিপিতে উল্লেখিত সমুদ্রগুপ্তের পূর্বাঞ্চলীয় ...

১৮৬৯ এর আগে শরীয়তপুর জেলা বৃহত্তর বিক্রমপুর এর অংশ ছিল

জেলা হিসেবে ১৯৮৪ সালে আত্মপ্রকাশ করলেও এ অঞ্চলটি সৃষ্টির প্রথম হতেই বাংলাদেশের অন্যান্য অঞ্চলের ন্যায় সকল ব্যাপারেই বিকশিত হতে থাকে। ইতিহাসের আদিকাল হতেই বিভিন্ন সামন্ত প্রভু ও রাজা দ্বারা এ অঞ্চল শাসিত হয়ে এসেছিল। আদিকালে শরীয়তপুরের এ অঞ্চল ‘বংগ’ (Vanga) রাজ্যের অধীনে ছিল। ‘বংগ’ পদ্মা নদীর দক্ষিণে বদ্বীপ অঞ্চলে বিস্তৃত তৎকালীন রাজ্যের নাম। এটি তৎকালীন ভাগীরথী এবং পুরাতন ব্রক্ষ্মপুত্র নদীর দক্ষিণাঞ্চল নিয়ে বিস্তৃত অঞ্চল। দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তের (৩৮০ খৃঃ - ৪১২ খৃঃ) রাজত্বকালে প্রখ্যাত কবি কালিদাসের ‘রঘুবানসা’ গ্রন্থে তিনি এ অঞ্চলকে গঙ্গানদীর প্রবাহে...

নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে লড়ে জার্মান মুসলিম তরুণীর মৃত্যু...

ঘটনাস্থল ভারত বা নারীদের জন্য বিপদজনক অন্যকোনো দেশ নয়। ঘটনাটি জার্মানির যে দেশকে নারী আন্দোলনের পুরোধা বলা যেতে পারে। টুচে আলবেয়রাক নামের এই ২৩ বছর বয়সী ম...