সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

haria jassa jonopod news.7.7.jpg

নদী ভাঙ্গন কুড়িগ্রামে ১০ বছরে ২৪টি জনপদ হারিয়ে গেছে

কুড়িগ্রাম জেলার উত্তর পুর্বাংশের মানচিত্র থেকে গত ১০ বছরে ছোটবড় ২৪টি জনপদ ব্রম্মপুত্র ও দুধকুমর নদের পেটে হারিয়ে গেছে। হারিয়ে যাওয়ার অপেক্ষায় আছে আরো ২০টি জনপদ।

কুড়িগ্রাম জেলার উত্তর পুর্বাংশের মানচিত্র থেকে গত ১০ বছরে ছোটবড় ২৪টি জনপদ ব্রম্মপুত্র ও দুধকুমর নদের পেটে হারিয়ে গেছে। হারিয়ে যাওয়ার অপেক্ষায় আছে আরো ২০টি জনপদ। নাগেশ্বরী, চিলমারী, উলিপুর, ভুরুঙ্গামারী ও কুড়িগ্রাম সদরসহ  ৫টির উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অফিস সুত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

প্রাপ্ত তথ্য সূত্রে হারিয়ে যাওয়া জনপদগুলি হচ্ছে, কুড়িগ্রাম সদরের সান্ধারপাড়া, ঘাটেরপাড়, জুগীপাড়, চিলমারী উপজেলার বাসন্তির গ্রাম, জোড়গাছ পুরাতন বাজার, উত্তর খড়কড়িয়া, ব্যাপারী পাড়া, সোদাফতখানা, হিন্দুপাড়া ও মাঝিপাড়। নাগেশ্বরী উপজেলার মাদারগঞ্জ, পুর্বকচাকাটা, মাঝিয়ালী, কালারচর, শান্তিয়ারচর, চরকাপনারচর, সারিসুরি, কঞ্চনারপাড়, চরবেরুবাড়ী, চরবল্লভেরখাস, মাইলানীপাড়া।উলিপুর উপজেলার সাহেবের আলগা, সাহেবগঞ্জ। এছাড়া ভুরুঙ্গামারী উপজেলার শালঝোড়, কালাপানি ও উত্তর সোনাহাট গ্রামগুলি নাম এখন মানুষের মুখে থাকলেও বাস্তবে অস্থিত্বহীন।

এর ফলে প্রায় ২৫ হাজার মানুষ ঘড়বাড়ী ও তাদের আবাদী জমি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে। সূত্র মতে ক্ষয় ক্ষতির পরিমান হয়েছে প্রায় ১০ কোটি টাকা। চিলমারী বাজারের বাসিন্ধা আশিষ চন্দ্র সরকার (৮৫) ও জয়নুদ্দিন (৯০) বলেন, চোখের সামনে গ্রামের পর গ্রাম বুম্মপুত্র নদীতে শেষ হয়া গেইল। কোনদিন সরকারের পক্ষ থাকি নদী শাসন বা লুবকাটিং করতে দেখি নাই। মাদারগঞ্জ এলাকার বাসিন্ধা আজভান বিবি (৮০) বলেন, হামার ঘড়সংসার সউগ আছিল নদীত সব ভাঙ্গি নিয়া এলা হামরা পথের ফকির। মাঝিপাড়া গ্রামের  পদ্মচন্দ্র দাস বলেন, হামার গ্রামটাতে ৪৫টা পরিবার বসবাস করছিলং পুরা গ্রামটা নদীত ভাঙ্গি যাওয়ায় এলা হামরা আস্তার পাশে ঘড় তুলি খুব কষ্টে বসবাস করছি।

যোগাযোগ করা হলে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহাফিজুর রহমান জানান, লিখতে লিখতে বিরক্ত হয়েছি। সরকার বরাদ্ধ না দিলে আমরা কি করবো। আর চরাঞ্চলে নদীশাসন করে কি লাভ। নদীকে তো চলতে হবে! 

নাগেশ্বরী, চিলমারী ও ভুরুঙ্গামারীর উপজেলা নির্বাহী অফিসাররা বলেন, নদীর একুল ভাঙ্গে ও কুল গড়ে এই তো নদীর খেলা। উল্লেখিত গ্রামগুলো নদী গর্ভে হারিয়ে গেছে। পাশেই ওই মানুষেরাই আবার নতুন গ্রাম সৃষ্টি করেছেন। যে সব এলাকা নদনদীর ভাঙ্গনে বিলীন হয়েছে সে সব এলাকা নদী উপকুল এবং প্রত্যন্ত দুর্গম অঞ্চল। ওই সব এলাকায় নদী শাসন ও লুবকাটিং করে লাভ কি? নদীকে তো চলতে দিতে হবে না! সত্য কথা কি এ সব এলাকার জন্য মিনিষ্ট্রিরি থেকে কোন বরাদ্ধ দিতে চায় না।

এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

kurigram, river, corrosion, natural, disaster, people, locality, suffer, protection