সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

torture-inhumanity.jpg

রূপক বাস্তবতা প্রেমিক নামক প্রতারক

সহজ সরল মেয়ের প্রেম-ভালবাসাকে কেন্দ্র করে প্রতারণার জাল বিছিয়ে কীভাবে এক শ্রেণির প্রতারক বাণিজ্য করে যাচ্ছে, তারই একটি ছবি অঙ্কন করা হয়েছে এই গল্পটিতে।

চারপাশের মসজিদ থেকে ভেসে আসছে আজানের ধ্বনি। অন্ধকার ধীরে ধীরে ফিকে হয়ে আসছে। হালকা আঁধার কেটে কেটে কু-ঝিক্-ঝিক্ ধ্বনি তুলে এগিয়ে চলছে একটি ট্রেন। ট্রেনটির গন্তব্য চট্টগ্রাম। ট্রেনের ভেতরে যাত্রীদের ভিড়ে আছে তানিয়া নামের একটি ষোড়শী মেয়ে। তার গন্তব্য কোথায়?

তানিয়া বসেছিল জানালার পাশের সিটে। ত্রা দৃষ্টি জানালার বাইরে। যদিও তখনো আঁধার পুরোপুরি কাটেনি। তার চোখের সামনে কোনো দৃশ্য স্পষ্ট না হলেও কিছু দৃশ্য ফুটে উঠলো ঠিকই। সে দৃশ্য পেছনে ফেলে আসা জীবনের। যে জীবন সে ত্যাগ করে এসেছে সারা জীবনের জন্য। তানিয়া যখন ঘর ছেড়ে বের হয় তখন বাবা-মা আর বড় বোন তার ছোট্ট ছেলেটিকে বুকে নিয়ে ঘুমাচ্ছিল। ঘড়ি জানান দিচ্ছিল চারটা বাজে। তানিয়া চিন্তা করলো আর দেরি করলে কেউ জেগে উঠতে পারে। তাছাড়া ট্রেনও মিস্ হতে পারে। তাই বেরিয়ে পড়লো। তবে বাড়ির বাইরে পা দিতেই মনটা কেমন করে উঠলো। সারা জীবনে আর হয়তো এ বাড়িতে ফেরা হবে না। দেখতে পাবে না জন্মদাতা বাবাকে, গর্ভধারিণী মাকে। তানিয়ার গাল বেয়ে ফোঁটা ফোঁটা অশ্রু গড়িয়ে পড়ে।

ট্রেনে উঠার পর মনকে অনেকটা শক্ত করে নেয় তানিয়া। কারণ সামনে তার নতুন জীবন। যে জীবনকে নিয়ে রঙিন কতো স্বপ্ন বাসা বেঁধেছিল মনের ঘরে।

কঠিন সিদ্ধান্তটা নিতে তার কষ্ট হয়েছিল খুব। কিন্তু কী করা। সজিবকে যে ভালোবাসে তানিয়া। এদিকে তানিয়ার বাবা বিয়ে ঠিক করে ফেলেছেন তানিয়ার। সে অনেক চিন্তা করেছে। কিন্তু সমাধান বের করতে পারেনি। ফ্যামিলিকে ম্যানেজ করা তার জন্য দুঃসাধ্য। কারণ তার বাবা অনেক রাগী। তিনি যেটা সিদ্ধান্ত নেন সেটাই হয়। তার মতের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে পারে না। তানিয়াও তাই কিছু বলতে পারেনি ভয়ে। তার আপু কিছুটা জানে তাদের সম্পর্কের কথা। তারও এক কথা, 'বাবাকে রাজি করবি কিভাবে?' কিন্তু সজিবকে যে কথা দিয়েছে সে, বিয়ে করলে একমাত্র তাকেই করবে। তানিয়া তাই মনের সাথে অনেক যুদ্ধ করে শেষ পর্যন্ত ঘর ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু সে জানে না তার জীবনে কী অপেক্ষা করছে সামনে।

ট্রেনে কিছুই খায়নি তানিয়া। যানবাহনে অন্য মানুষের সামনে বসে কিছু খাওয়া তার পছন্দ না। তানিয়া ট্রেন থেকে নেমেই ফোন দেয় সজিবকে। ফোন রিসিভ হয় না। আবার ফোন দেয়। একই অবস্থা। সজিব কেন ফোন রিসিভ করছে না বুঝতে পারছে না তানিয়া।

টেনশনে ক্ষুধার যন্ত্রণা ভুলে গেল তানিয়া। সে স্টেশনের ফাঁকা একটা বেঞ্চে বসে পড়লো। কোনো কারণে যদি সজিবকে খুঁজে না পায় তানিয়া? কী হবে তখন। সাত-পাঁচ ভাবতে থাকে তানিয়া। সজিবকে সে ভালোবাসে ভীষণ। তার সাথে পরিচয় বান্ধবী লায়লার মাধ্যমে। লায়লার সাথে প্রায়ই ফোনে কথা বলতো সজিব। একদিন লায়লাদের বাড়িতে বেড়াতে গেলো তানিয়া। লায়লার রুমে বসে একটা উপন্যাস পড়ছিলো তানিয়া। হঠাৎ লায়লার ফোন বেজে উঠলো। কিন্তু লায়লা তখন রুমে ছিলো না। সে রান্নাঘরে তার আম্মার সাথে কাজ করছিলো। ফোন বাজছে তো বাজছেই।

কয়েকবার বাজার পর ফোনটা রিসিভ করে তানিয়া। ওই প্রান্তের পুরুষ কণ্ঠটি তানিয়ার গলা পেয়ে পরিচয় জানতে চাইলে বললো, 'আমি তানিয়ার বান্ধবী।' পুরুষ কণ্ঠটি উচ্ছ্বসিত হয়ে বললো, তাই। কি নাম আপনার? তানিয়া প্রথমে নাম বলতে চাইলো না। কিন্তু কণ্ঠটি তাকে যেন মোহাবিষ্ট করে ফেলেছে। সে বললো, আমার নাম তানিয়া। আপনার নাম? এভাবেই প্রথম সজিবের সাথে তানিয়ার কথা এবং পরিচয়।

সেদিনই তানিয়ার মোবাইল নাম্বারটিও নিয়ে নেয় সজিব। তারপর থেকেই তানিয়ার সাথে সজিব কথা বলতো ফোনে। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে একটা সম্পর্ক সৃষ্টি হয়। প্রেমের সম্পর্ক। সজিব শুরুতেই তানিয়াকে একটা শর্ত দিয়ে দেয়। সে যেনো তাদের কথা লায়লাকে না জানায়। আর বলে, লায়লার সাথে তার কোনো সম্পর্ক ছিলো না। লায়লার সাথে সে অভিনয় করেছে মাত্র। সহজ-সরল মোহাবিষ্ট মেয়ে তানিয়া সজিবের কথা বিশ্বাস করলো। তার শর্তও মেনে নিলো। এই সরল বিশ্বাসই হয়তো তার জীবনের বড় ভুল ছিলো।

তাদের প্রেমের বয়স ছয়-সাত মাস হবে। এর মধ্যে কয়েকবার দেখাও হয়েছে তাদের । চট্টগ্রাম থেকে সজিবই এসেছিলো। দেখা হলে সজিব প্রতিবারই তানিয়াকে অনেক স্বপ্নের কথা বলতো। তানিয়া মুগ্ধ হয়ে তা শুনতো। আর সজিবের প্রতি আরো আকৃষ্ট হতো। এক পর্যায়ে তার প্রেমে এতটাই মজে যায় যে, তার চারপাশের সবকিছুই তার কাছে মেকি মনে হতে থাকে।

তাইতো তার কথা সে ফেলতে পারেনি। সজিব বলেছিলো, 'তুমি তোমার ফ্যামিলি চাও? নাকি আমাকে চাও? যদি আমাকে চাও, তবে চলে এসো আমার কাছে।'

তানিয়া ঘর ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেয়ার পর সজিবের কাছ থেকে তাদের ঠিকানা চাইলে সজিব বললো, 'লাকসাম থেকে ট্রেনে উঠে সোজা চট্টগ্রাম। মাঝে মাঝে ট্রেন বিভিন্ন স্টেশনে থামবে, যাত্রী উঠা-নামা করবে। তুমি একেবারে চট্টগ্রাম লাস্ট স্টপেজে এসে নামবে। ব্যাস!' তানিয়া বলে উঠে, 'তারপর কোথায় যাবো?' সজিবের জবাব, 'তুমি ট্রেন থেকে নামলে বাকি কাজ আমার। তুমি শুধু চট্টগ্রাম আসো।' তানিয়া সজিবের কথায় নির্ভরতা খুঁজে নেয়।

হঠাৎ মোবাইলের রিংটোনে ভাবনায় ছেদ পড়ে তানিয়ার। চমকে উঠে মোবাইল হাতে নেয় সে। সজিবের ফোন। কোনো সময়ক্ষেপণ না করেই ফোন রিসিভ করে তানিয়া।
- হ্যালো।
- তানিয়া তুমি কোথায়?
- এতোক্ষণ তুমি কোথায় ছিলে?
- পরে জানবে সব। এখন বলো তুমি কোথায়?
- আমি যাত্রী ছাউনিতে।
- আচ্ছা তুমি ১ মিনিট বসো, আমি আসতেছি।
কিছুক্ষণের মধ্যেই তানিয়া দেখলো সজিব আসছে যাত্রী ছাউনির দিকে। তাকে দেখতে পেয়ে তানিয়ার বুক থেকে যেন একটা পাথর সরে গেল।

তানিয়া আর সজিব একটি হোটেলে বসে আছে। খাবারের অর্ডার দেয়া হয়েছে। তানিয়া ওয়াশরুমে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে আসলো। এর মধ্যে টেবিলে খাবার চলে এসেছে। প্রচণ্ড ক্ষুধা আর ক্লান্তি নিয়ে তানিয়া খাবার খেতে শুরু করলো। গোগ্রাসে কিছুক্ষণ খাবার গিললো সে। তারপর মাথা তুলে দেখে সজিব তাকিয়ে আছে তার দিকে। সে আবার মাথা নিচু করে খেতে শুরু করলো।

খেতে খেতেই বললো, 'বলো, তুমি এতো দেরি করলে কেনো আসতে?' আসলে তোমার থাকার ব্যবস্থা করতে গিয়ে একটু ঝামেলা হয়ে গেছে, তাই একটু বেশি সময় লেগে গিয়েছিলো। সজিবের সরল জবাব। তানিয়া বলে উঠলো, ঝামেলা হলো কী নিয়ে? এবার সাথে সাথে জবাব আসলো না সজিবের কাছ থেকে। মাথা নিচু করে আছে, যেন গুছিয়ে নিচ্ছে কী বলবে। একটু পরই মাথা তুললো, 'আমাদের বিয়েটাতো এখনই হচ্ছে না। সব কিছু ঠিক হতে সময় লাগবে। তাই তোমার জন্য বাসা ভাড়া করতে গেলাম। কিন্তু তারা একা কোনো মেয়েকে বাসা ভাড়া দেবে না। শেষমেষ স্বামী-স্ত্রী থাকার কথা বলে একটা বাসা ঠিক করলাম।'

তানিয়ার শুধু সজিবকে পেলে আর একটু থাকার জায়গা পেলে আর কিছু লাগবে না। কিন্তু তাই বলে বিয়ে ছাড়াই দু'জন একসাথে থাকবে? নাহ্। এটা সে মেনে নিতে পারছে না। ক্ষুদ্ধ কণ্ঠে সজিবকে বললো, 'বিয়ে করতে না পারলে দু'জন একসাথে থাকবে কীভাবে?' সজিব তার রাগ কমানোর জন্য বললো, 'আরে বিয়ে তো হবেই। তবে হঠাৎ করে তো সম্ভব না। সব গুছিয়ে নিয়ে তারপর। আর এখন একসাথে থাকবো কেনো? তুমি থাকবে ওই বাসায়। আমি শুধু মাঝে মাঝে যাবো, যাতে বাড়িওয়ালা না বুঝতে পারে বিষয়টা।' একথা শুনে তানিয়া চুপ করে কিছুক্ষণ ভাবলো। তার মনে কেনো যেন সন্দেহ হচ্ছে। সে যে হঠাৎ করে সবকিছু ছেড়ে একটা ছেলের জন্য চলে এসেছে, এটা কী তার ঠিক হয়েছে? নাহ্। কিছু ভাবতে পারছে না তানিয়া। তার মাথা কাজ করছে না এখন।

সজিব তানিয়াকে নিয়ে তানিয়ার জন্য ঠিক করা বাসায় আসলো। তানিয়া বাসায় ঢোকার পর আশ্চর্য হলো। খাট, বিছানা, আসবাবপত্র সবকিছুই আছে। বাসাটা এক রুমের নয়, দুই রুমের। আরো কিছু জিনিস দেখে তার মনে খটকা লাগলো। তবু সে বাসাটা নিজের মতো করেই গুছিয়ে নিতে লাগলো। সজিব গেল কিছু বাজার সদাই আনতে।

সন্ধ্যা হয়ে গেছে আরো আগেই। সজিব আসছে না দেখে বিছানায় গা এলিয়ে দিল তানিয়া। শরীর ক্লান্ত থাকায় ঘুমে জড়িয়ে এলো চোখজোড়া। তার দেহের উপর ভারি কিছুর চাপ অনুভব করতেই হঠাৎ জেগে উঠে তানিয়া। তার উপরে কোনো পুরুষের অস্তিত্ব টের পেলো সে। চোখ মেললো। কিন্তু লাইট অফ থাকায় কিছুই দেখলো না। বুঝতে পারলো তার পরনে সেলোয়ারটা নেই। তানিয়া চিৎকার করে উঠলো। লোকটার একটা হাত এসে মুখ চেপে ধরলো। এখন সে চিৎকারও করতে পারছে না। তানিয়া ছটফট করতে লাগলো অনবরত। কিন্তু নিজেকে রক্ষা করতে পারলো না।

লোকটি যখন উঠে চলে গেল বাইরে তখন তানিয়া উঠে লাইট অন করলো। দেখলো আরেকটি লোক এসে ঢুকেছে তার রুমে। ধীরে ধীরে তার দিকেই আসছে। সে চিৎকার করে সজিবকে ডাকতে লাগলো। লোকটি তাচ্ছিল্যের ভাব করে বললো, 'তাকে ডেকে লাভ কী? কী লাগবে আমার কাছে বলো। এখন তো তুমি আমাদেরই।' লোকটির কথা শুনে তানিয়া যেন আকাশ থেকে পড়লো। সে বললো, 'কেনো, সজিব কোথায়? আপনি কে?' লোকটি বললো, 'মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সে আমাদের কাছে তোমাকে বিক্রি করে গেছে। সে আর আসবে না কখনো।'

'মানে?' আর্তচিৎকার দিয়ে তানিয়া ধপ করে বসে পড়ে। তার মাথা ঘুরছে মাথার উপরে থাকা ফ্যানের চাইতেও দ্রুত গতিতে। চারপাশ অন্ধকার হয়ে আসে তার। এ কোন অন্ধকার তার জীবনকে ঘিরে ফেললো হঠাৎ। সে যে আলোর জীবন স্বপ্ন দেখেছিলো এতোদিন, তা এমন করেই অধরা হয়ে অন্ধকারে মিলিয়ে যাবে? এরমধ্যেই লোকটি হামলে পড়ে তার উপর। কিছুক্ষণ ধস্তাধস্তির পর অচেতন হয়ে পড়ে তানিয়া।

যখন তানিয়া চোখ খুললো তখন সকাল হয়ে গেছে। একটু নড়াচড়া করতেই টের পেল শরীর জুড়ে তীব্র ব্যথা। তার মনে এর চাইতেও বেশি যন্ত্রণা তাকে কুরে কুরে খাচ্ছে। না। শরীরের যন্ত্রণা সইতে পারলেও মনের যন্ত্রণা আর সইতে পারছে না। সে কতো বড় ভুল যে করেছে জীবনে, চিন্তা করলেই তার মাথা ঘুরছে ভনভন করে।

বেঈমান প্রতারক আমার সহজ-সরল মনটা নিয়ে এভাবে ছিনিমিনি খেলতে পারলো? এভাবে আমার জীবনটাকে অসীম অন্ধকারে ছুড়ে ফেলে নিজের স্বার্থ হাসিল করে চলে যেতে পারলো কিভাবে? আর ভাবতে পারছেনা তানিয়া। হঠাৎ তার চোয়াল শক্ত হয়ে উঠলো। চোখ গেলো দরজার দিকে। এগিয়ে গেলো দরজায়। খুলতে গিয়ে দেখলো দরজা বাহির থেকে বন্ধ। খুঁজে দেখলো তার মোবাইলটাও নেই। তার মানে সে এখানে বন্দি। শুধু বন্দি হলে তাও মেনে নেয়া যেতো। তাকে প্রতিদিন তিলে তিলে খুবলে খাবে ওই বদমাশগুলো। এটা চিন্তা করতেই তার মাথাটা চক্কর দিয়ে উঠলো। না, আর সে কারো খাদ্য হতে দেবে না তার শরীর। তানিয়া সিদ্ধান্ত নিয়ে নিলো। হয় এখান থেকে পালাবে, না পারলে শেষ করে দিবে নিজেকে।

রাতে ওই লোকগুলো ফিরে আসলো। দরজার তালা খুলে দেখলো ভেতর থেকে বন্ধ। অনেক ধাক্কাধাক্কি করেও যখন সাড়াশব্দ পেল না। তখন দরজা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকলো। কিন্তু মেয়েটি কোথায়? খুঁজে পেল শেষে কিচেন রুমে। পড়ে আছে তার নিথর দেহ। ফেনা বেরুচ্ছে তার মুখ দিয়ে।

এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

Fraud, Reality, love, Regret, Hate, Torture, Women, Right