সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে লড়ে জার্মান মুসলিম তরুণীর মৃত্যু, তোলপাড় পশ্চিমা মাধ্যম

ঘটনাস্থল ভারত বা নারীদের জন্য বিপদজনক অন্যকোনো দেশ নয়। ঘটনাটি জার্মানির যে দেশকে নারী আন্দোলনের পুরোধা বলা যেতে পারে। টুচে আলবেয়রাক নামের এই ২৩ বছর বয়সী মুসলিম তরুনী গত ১৪ নভেম্বর ভোররাতের দিকে ফ্রাংকফুর্টের কাছের একটি স্থানীয় ম্যাকডোনাল্ড রেস্টুরেন্টে খেতে গিয়েছিলেন৷ হঠাৎ বাথরুম থেকে চেঁচামেচি শুনতে পেয়ে সেখানে যান তিনি এবং দেখেন একদল তরুণ দুই স্কুল ছাত্রীকে হয়রানি করছে৷ টুচে এই ঘটনার প্রতিবাদ করেন৷ এর কিছুক্ষণ পর যখন তিনি রেস্টুরেন্ট থেকে বের হয়ে আসছিলেন, তখন সামনের পার্কিংএ হয়রানিকারী ওই দল দ্বারা আক্রান্ত হন। এরমধ্যে একজন তার মাথায় সজোড়ে ঘুষি মারলে তিনি ছিটকে পড়ে যান এবং জ্ঞান হারান। এই সঙ্গাহীন অবস্থায় তিনি হাসপাতালের কোমায় ১৪ দিন ছিলেন। ২৮শে নভেম্বের চিকিৎসকরা টুচে-র আর কোমা থেকে ফিরে আসা সম্ভব নয় বলে ঘোষণা দিলে তার লাইফ সাপোর্ট খুলে ফেলা হয়৷ এরমধ্যে গত সপ্তাহে জার্মানির শীর্ষস্থানীয় সংবাদ মাধ্যম বিল্ড ঘটনাস্থলের পাশ থেকে ধারণ করা ক্লোজসার্কিট ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করেছে। ফুটেজে দেখা যায় অনেক লোকজনের সামনেই ঘটনাটি ঘটেছে। টুচে-কে আঘাত করার অভিযোগে ১৮ বছরের এক তরুণকে আটক করেছে পুলিশ৷ সে ঘটনা স্বীকার করলেও তার দাবি, ওটা ছিল ‘একটা চড় মাত্র'৷ এই মৃত্যুর ঘটনায় তোলপাড় হচ্ছে গোটা পশ্চিমা মাধ্যম। একইসাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও চলছে বিভিন্ন কর্মকান্ড। টুচে-কে বলা হচ্ছে সাহসিকতার প্রতিক। দাবি উঠেছে তাকে জার্মানির সর্বোচ্চ বেসামরিক খেতাবে ভুষিত করার। এই মর্মে একটি পিটিশনও খোলা হয়েছে যাতে ধর্ম বর্ণের বাইরে এসে প্রায় দুই লাখ মানুষ স্বাক্ষর করেছে। টুচে তুর্কি বংশোদ্ভুত জার্মান বলে প্রশ্ন উঠেছে জার্মানির অভিবাসন নীতি নিয়েও। এরমধ্যে টুচে-র বাবা মায়ের কাছে চিঠি লিখে সমবেদনা জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ইওয়াখিম গাউক। অন্যদিকে নিউইয়র্ক টাইমসে প্রকাশ চ্যান্সেলর এঙ্গেলা মার্কেল নির্দেশ দিয়েছেন যেন অভিবাসী ও শরণার্থীরা স্থানীয় জার্মানদের মতই সব ধরনের প্রশিক্ষণ নেয়ার সুযোগ পায়। গত মঙ্গলবার জার্মান ম্যাকডোনাল্ড টুচে-র সুনাগরিকসুলভ সাহসিকতার প্রশংসা করে এক পুরো পাতার বিজ্ঞাপন প্রকাশ করেছে। - তথ্য ও ভিডিও সূত্র: DW.de, Telegraph.co.uk
এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

News, World, Right, Women, German, Tuğçe-Albayrak