সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

20140927_153815 (1).jpg

ডিএনডি, দখল, প্রকল্প ‘ক্রয়সূত্রে’ ডিএনডি খালের মালিক এবং একটি প্রস্তাবনা

১.
মাস দুই আগে চট্টগ্রাম যাচ্ছিলাম। কুমিল্লা ঢোকার পথে মেঘনা নদীর এক মৃতপ্রায় শাখায় দেখলাম একটি সাইনবোর্ড দাঁড়িয়ে আছে, যাতে সাইনবোর্ড স্থাপনকারী জায়গাটির ক্রয়সূত্রে মালিকানা দাবি করছেন। সাইনবোর্ডটি এখনো থাকার কথা। যে হারে বাংলাদেশের নদী-খালগুলো মারা যাচ্ছে, তাতে পাঁচ বছর পর এই ব্যক্তি সেখানে বিশাল কোনো স্থাপনা তৈরি করলে কারো পক্ষে হয়তো বিশ্বাস করা সম্ভব হবে না যে, এখানে কোনো কালে নদীর অস্তিত্ব ছিলো।

আমার যাতায়াত ডেমরা - যাত্রাবাড়ির উপর দিয়ে। পুরো ডেমরা থানা ডিএনডি বাঁধের ভেতরে। ডিএনডি খালের সারুলিয়া থেকে মাতুয়াইল অংশ ব্যবহৃত হচ্ছে শীতলক্ষ্যা নদী থেকে সায়দাবাদ ওয়ারটার ট্রিটমেন্ট প্লান্টের পানি আনার জন্য। মাতুয়াইল থেকে যাত্রাবাড়ি অংশের কিছু কিছু জায়গা দখল হয়ে গেছে, কিছু দখল হওয়ার পথে। সারুলিয়া থেকে দক্ষিণ দিকে শিমরাইল পর্যন্ত বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশনের সাথে যৌথ উদ্যোগে একটি প্রতিষ্ঠান মাছ চাষ করছে। এটি নিঃসন্দেহে চমৎকার একটি উদ্যোগ।

শিমরাইল থেকে যাত্রাবাড়ি পর্যন্ত অর্থাৎ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সমান্তরালে ডিএনডি খালের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া কষ্টকর। যার যার মতো ভরাট করে এখানে ব্যবসা চলছে। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো ফ্লাইওভারের শুরুর অংশে ডিএনডি খাল বিক্রি হয়ে গেছে। জনগণের এই সম্পত্তি কে কবে বিক্রি করলো, তা হয়তো কেউ জানেন না। তবে এর 'ক্রেতা' হচ্ছেন জনৈক খাজা মুজিবুল হক এবং জনৈক আনোয়ার হোসেন খান। খাজা মুজিবুল হক নিজে এর 'ক্রেতা' হলেও আনোয়ার হোসেন খান 'ক্রয়' করেছেন মডার্ন মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের পক্ষে।

২.
ঢাকার সবচেয়ে আকর্ষণীয় স্পট হিসেবে হাতিরঝিল প্রকল্পের কথা উল্লেখ করা হয়। কিন্তু হাতিরঝিলের চেয়ে আরো দীর্ঘ, আরো সুন্দর প্রকল্প হতে পারে ডিএনডি খালকে কেন্দ্র করে। এ জন্য কয়েকটি প্রস্তাব উপস্থাপন করছি।

ক. সকল দখলদারদেরকে উচ্ছেদ করে ভরাটকৃত জায়গাগুলো আবার খনন করতে হবে।
খ. খালের দুই পাশ টালি বা রেলিং দিয়ে আটকে দিতে হবে, যাতে কেউ কোনো টং স্থাপনেরও সুযোগ না পায়।
গ. পুরো খাল মাছ চাষের জন্য বিভিন্ন সংস্থার কাছে ইজারা দিতে হবে। এতে সংস্থাগুলো নিজেদের গরজেই পানি পরিষ্কার রাখবে এবং এখান থেকে ঢাকার মানুষের মাছের চাহিদার একটা অংশ পূরণ করা যাবে।
ঘ. সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য খালের দুই পাশে বিভিন্ন গাছ রোপণ করতে হবে। এর মধ্যে অবশ্যই দেশী ফলের গাছসহ এমন গাছ থাকতে হবে, যাতে পাখি বসে এবং বাসা গড়ে।
ঙ. নগরবাসীর বিনোদনের জন্য খালে ভাড়া নৌকার ব্যবস্থা করা যেতে পারে। এতে কিছু লোকের কর্মসংস্থানও হবে।

এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

News, Bangladesh, dnd, canal, project