সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

1.jpg

ধর্ষনের স্বীকার সোহাগীদের বাঁচতে চাইতে নেই

সুশীল সমাজের যারা কথায় কথায় বলেন, নারী ধর্ষনের জন্য নারীর পোশাককে দায়ী করেন তারা কি জানেন নিয়মিত হিজাব পরিহিতা একজন নারী ছিলো সোহাগী।

এইতো কদিন আগে নারী দিবসে বলছিলাম নারীদের অধিকার নিয়ে। বলছিলাম, আমরা নারীরা কোন দিবস, অধিকার চাইনা। কেবল নিজের মত করে একটু বাঁচতে চাই। সোহাগী নামটা ইতোমধ্যেই সবাই জেনে গেছেন। জি হ্যা বলছিলাম, ধর্ষিত হয়ে মৃত্যুবরণ করা সোহাগীর কথা। বলতে পারেন, কি অন্যায় ছিলো সোহাগীর?

কুমিল্লা সেনানীবাসের ভেতরে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। নিহতের নাম সোহাগী জাহান তনু (১৯)। তিনি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের (সম্মান) ছাত্রী এবং একই কলেজের নাট্য সংগঠন ‘ভিক্টোরিয়া কলেজ থিয়েটারের (ভিসিটি) সদস্য।

রোববার রাতে (২০ মার্চ) ময়নামতি সেনানিবাসের অলিপুর এলাকায় একটি কালভার্টের কাছ থেকে পুলিশ ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে।

সেনানিবাস কে অন্যান্য এলাকা থেকে বেশি সুরক্ষিত এলাকা হিসেবে ধরা হয়, তাইনা? সেই সেনানিবাসেই একটি মেয়েকে ধর্ষন করে মেরে ফেলা হল? তাহলে আমরা কোথায় আশ্রয় নিবো? কোথায় গেলে একটু নিজের মত চলতে পারবো?

ঘটনার দিন ২০ মার্চ বিকেল সাড়ে ৫ টার দিকে প্রতিদিনের মতো সোহাগী ঘর থেকে বের হন। বাসায় ফিরতে দেরি হওয়ায় পরিবারের সদস্যরা তার সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করে। কিন্তু চেষ্টা ব্যর্থ হলে যে বাসায় টিউশনি করতেন সেখানে খোঁজ নিয়ে জানতে পারে সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় ওই বাসা থেকে তিনি বের হয়ে গেছেন।

খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকে ময়নামতি সেনানিবাসের অভ্যন্তরে পাওয়ার হাউসের পানির ট্যাংক সংলগ্ন স্থানে সোহাগীর মৃতদেহ পাওয়া যায়। গলাকাটা মৃতদেহ নগ্ন অবস্থায় কালভার্টের পাশে ঝোপঝাড়ের ভেতর পড়েছিলো। নাক দিয়ে রক্ত ঝরছিলো। মোবাইল ফোনটিও পড়েছিল পাশে।

সুশীল সমাজের যারা কথায় কথায় বলেন, নারী ধর্ষনের জন্য নারীর পোশাককে দায়ী করেন তারা কি জানেন নিয়মিত হিজাব পরিহিতা একজন নারী ছিলো সোহাগী। মেয়েটা ভালো অভিনয় করতো, ভালো বিতার্কিক ছিলো। তাহলে তার অপরাধ কি সে মেয়ে হয়ে জন্মেছে? একজন মানুষ হয়ে বাঁচতে চাওয়াটাই কি অন্যায়?

আসলে সোহাগীদের বাঁচতে চাইতে নেই। সোহাগী আমরা সব নারী। এই সমাজে আমাদের একটু নিজের মত চলার অধিকার নেই। এই সমাজে আমরা প্রতিনিয়ত ধর্ষনের স্বীকার হই। কেউ শারীরিকভাবে আর কেউ মানসিকভাবে।

একজন সোহাগীর কথা না হয় আজ সবাই জানলো। এমন কত সোহাগীর দেহ চলে গেছে পশুদের আওতায় তার হিসেব তো আমরা রাখিনা। নিজেকে নিয়ে কি করে এই ভয়ানক সমাজে টিকতে পারবো সেটাই এখন চিন্তার বিষয়?

কবে একটা সুখবর পাবো যে ধর্ষকের ফাঁসি হয়েছে? কবে একটা সুখবর পাবো এই সমাজের পশুগুলোকে রুখে দাড়াতে আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে আমাদের বন্ধু, ভাই, পুরুষ সমাজ? 


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

সোহাগী, ধর্ষন, বিচার, নারী-অধিকার, কুমিল্লা, সেনানিবাস