সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

Dengu-Fever-Advice.jpg

পরামর্শ ডেঙ্গু জ্বর থেকে দ্রুত মুক্তি পেতে করণীয়

ডেঙ্গু জ্বরে আতংক না হয়ে ডাক্তারের কাছে যান। সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসার মাধ্যমে সহজেই সুস্থ হওয়া যায়।

আপনার ডেঙ্গু জ্বর ধরা পড়েছে? আপনাকে পরামর্শ দিয়ে ডাক্তাররাও প্রচুর ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন অন্যান্য রোগীর চিকিৎসায়। তো এখন আপনার করণীয় কি?

চলুন জানা যাক, কিছু করণীয় যাতে দ্রুত এই জ্বর থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

  • দিন শুরু করুন ফলমূল দিয়ে: যদি আপনার কোন খাবার খেতে ইচ্ছে নাও করে তবুও দিনের শুরুটা তাজা ফলমূল দিয়েই সূচনা করবেন। ফলমূল থেকে প্রচুর শক্তি পাবেন। দিনের পর রাত আসলো তবুও খেতে ইচ্ছে না করলে আবারো ফলমূল খান। জুস না খেয়ে লেবু, আপেল ইত্যাদি ফল সরাসরি খাবেন।
  • নাস্তায় সহজপাচ্য খাবার গ্রহণ: সকালের নাস্তায় সহজপাচ্য ও পুষ্টিকর খাবার খাবেন।
  • সঠিক সময়ে ঔষধ গ্রহণ: ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন মোতাবেক ঔষধগুলো সঠিক সময়ে গ্রহণ করুন। ঔষধ ক্রয়ের পূর্বে মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ দেখে নিবেন। প্রয়োজনে আপনার ডাক্তারের সাথে কথা বলে নিবেন।
  • বারবার খাবার গ্রহণ: একবারে অনেক খাবার না খেয়ে অল্প অল্প করে বারবার খাবার খাবেন। ঔষধ খাবার সময়েও আপনার পেট ভরা রাখা জরুরী। এতে ভাইরাসের বিরুদ্ধে দ্রুত শরীর সক্রিয় হবে।
  • হাইড্রেটেড থাকুন: বেশি করে পানি পান করুন। ডাবের পানি, বাসায় তৈরি ফলের জুস, চিনি ও লবণ পানি বা স্যালাইন শরীরকে আর্দ্র রাখবে। কিছু সময় বা প্রতি ঘন্টায় মুখ ভেজা রাখতে একটু একটু করে হলেও পানি পান করবেন। এতে শরীর থেকে টক্সিন বের হয়ে যাবে।
  • বাইরের খাবার পরিহার করুন: সারাক্ষণ পানীয় খাবার খেলে হয়ত ঝাল খাবার যেমন সমুচা, চিপস, স্পাইসি খাবার খেতে মন চাইবে। কিন্তু এসব খাবার ভুলেও খাবেন না। কারণ আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যথেষ্ট হয়নি। তবে শুকনো খাবারের ক্ষেত্রে কিসমিস ও খেজুর খাবেন।
  • রাত ৮ টার পূর্বে খাবার গ্রহণ: রাতের খাবার খাওয়ার উত্তম সময় হবে ৮ টার পূর্বেই। এতে রাতের খাবার ও ঘুমের মাঝে পর্যাপ্ত সময় পাবেন। ফলে সহজে খাবার পাচিত হবে। এতে পেটের কোন রোগ থাকলে সেটি কোন জটিলতার সৃষ্টি করতে পারবে না।
  • কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে বাঁচুন: অধিকাংশ লোকই বিভিন্ন ধরনের ঔষধ সেবনের ফলে কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগেন। এই সমস্যা থেকে বাঁচতে প্রচুর পরিমাণ আঁশযুক্ত খাবার ও তরল খাবার যেমন স্যুপ খান। তবে চা, কফি পান করবেন না।
  • পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন: কয়েকদিনের অসুস্থ্যতায় আপনার দূর্বলতা লাগতে পারে। তাই প্রচুর বিশ্রাম নিবেন। এসময় ব্যায়াম করা থেকে বিরত থাকবেন। তবে বিশ্রামের পূর্বে কোন ঔষধ খাওয়ার প্রয়োজন থাকলে খেয়ে নিবেন।
  • আবারো ডাক্তারের পরামর্শ নিন: আপনার ঔষধের কোর্স সমাপ্ত হওয়ার পরও ডাক্তারের কাছে যাবেন। আপনি সম্পূর্ণ সুস্থ হলেও যাবেন। যদি আবারো রক্ত পরীক্ষার প্রয়োজন পড়ে তবে পরীক্ষা করান। কারণ এই জ্বর আবারো ওঠার সম্ভাবণা থাকে।

ডেঙ্গু জ্বরে আতংক না হয়ে ডাক্তারের কাছে যান। সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসার মাধ্যমে সহজেই সুস্থ হওয়া যায়। আপনার সুস্বাস্থ্য কামনা করে আজ এ পর্যন্তই।

তথ্যসূত্র: দি হেলথ সাইট। 


এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

থার্মোমিটার, ঔষধ, রোগী, চিকিৎসা, ডাক্তার, আতংক, করণীয়, জ্বর, ডেঙ্গু